সার্ভে করে আয় !

ধরুন আপনার একটি কোম্পানি আছে যা, কিছু পণ্য তৈরি ও বিক্রি করে থাকে। কিন্তু পণ্য বিক্রি করার ক্ষেত্রে আপনি একটি সমস্যা লক্ষ করলেন যে, ভিন্ন ভিন্ন গ্রাহক বা ব্যবহারকারী ভিন্ন ভিন্ন পণ্য পছন্দ করেন। আবার, এলাকা ভেদে পণ্যের চাহিদাও ভিন্ন। আর আপনি চান আপনার কোম্পানি কিংবা ব্যবসায় অধিক মুনাফা আসুক। সে জন্য আপনার বিপণন ব্যবস্থা নিখুঁত হওয়া চাই।

earn Online
সার্ভে করে আয়

বিপণন ব্যবস্থা সুন্দর হওয়ার জন্য সবার আগে আপনাকে বাজার বুঝতে হবে। বাজার বুঝার জন্য অনেক কোম্পানিই গ্রাহকদের মাঝে একটা জরিপ করে থাকে যার মাধ্যমে, তারা গ্রাহকদের ফিডব্যাক পেয়ে থাকে।

আপনি যেহেতু পোষ্টটির হেডলাইন দেখে এখানে এসেছেন, তাহলে আমই ধরে নিচ্ছি আপনি সার্ভে করে আয় করতে ইচ্ছুক বা সার্ভে করে আয় করতে চান। এখন আমই আপনাকে কিছু প্রশ্ন করবো। যদি এই প্রশ্নের ঠিকঠাক উত্তর আপনার কাছে থাকে তো আপনি বুঝে যাবেন যে, আপনার জন্য এই কাজ কিনা?
চলুন শুরু করা যাক।
1. আপনি দৈনিক কতটা সময় ব্যয় করতে পারবেন ?
2. গুগলে সার্চ করে করে সমস্যা সমাধান করতে পছন্দ করেন?
3. ইনকাম করার জন্য স্বদিচ্ছা কতটুকু?
4. আপনার বাবার অর্থসম্পদ কেমন?

ধৈর্য ধরে নিজেকে প্রশ্নগুলো করুন আর উত্তর খোঁজার চেষ্টা করুন। এখনি উত্তর দিতে হবে না। উত্তর গুলো দেওয়ার আগে নিচের অংশটুকু পড়ে নিন।


১- সার্ভে কি?


সহজ কথায় সার্ভে হচ্ছে একটি গবেষণা বা জরিপ। কোন কিছু সম্পর্কে কারো মতামত নেওয়াকেই সার্ভে বলে। এখন সার্ভে করে আয় করা যায় কিভাবে? তাহলে মনে করুন আপনার একটা ব্যবসা আছে। তো আপনি চান আপনার গ্রাহকদের বুঝতে। এতে আপনার ব্যবসা প্রসার ও গ্রাহক সেবাও আরো উন্নত হবে। তো আপনি গ্রাহকদের কাছে গিয়ে গিয়ে আপনার প্রডাক্ট সম্পর্কে তাদের মতামত নিচ্ছেন। কিন্তু খেয়াল করলেন যে কেউ আপনাকে তেমন পাত্তা দিচ্ছে না। তো গ্রাহকদের পাত্তা পেতে আপনি কি করলেন, কিছু অর্থ বা ফ্রি সেবা অফার করলেন। এতে গ্রাহক ও বিরক্ত হলোনা। আর আপনিও আপনার কাজটি করে নিলেন।
ঠিক এইরকম ভাবে বিভিন্ন কোম্পানি টাকার বিনিময়ে সার্ভেতে অংশ নেওয়ার অফার করে থাকে। আপনি চাইলে তাদের অফার গ্রহণ করে ইনকাম করে নইতে পারেন।
সার্ভে জিনিসটা বুঝে গেলেন। এবার চলুন জানা যাক,


২-কোথায় গেলে সার্ভে তে অংশ গ্রহণ করতে পারবেন?


হুম, সার্ভে তে অংশগ্রহণ করার জন্য কোথাও যেতে হবেনা। আপনার মুঠোফোনটি যদি মোটামুটি ভাল মানের হয় আর নেট কানেকশন থাকে ভালো তাহলেই আপনি এই কাজটি করতে পারবেন। এখন আপনাকে যে কাজটি করতে হবে তা হলো, ইন্টারনেট এ প্রচুর ওয়েবসাইট আছে যেখানে সার্ভে করার বিনিময়ে অর্থপ্রদান করে। আপনার কাজ হবে গুগল এ সেগুলো সার্চ করে করে সাইট গুলোতে রেজিস্টার করে নইয়ে কাজ শুরু করা। তবে , বলে রাখি, বেশির ভাগ সাইট কিন্তু দেশের বাহিরের । অনেক সাইট ই আছে যারা বিদেশি গ্রাহককে সুযোগ দেয় না। কারণ, জরিপকারী কোম্পানিগুলো চায় তাদের গ্রাহকরাই যেন এই জরিপে অংশ নেয় এবং তারা যেন অধিক লাভবান হয়। ফলে অধিকাংশ সাইটে আপনি কাজ করতে পারবেন না। এখন আপনি যেটা করতে পারেন সেটা হল, ভার্চুয়াল কম্পিউটার ভাড়া করে সেটা দিয়ে কাজ করা। কিন্তু, সমস্যা কিন্তু থেকেই যাচ্ছে।
সাইটের কর্তৃপক্ষ যদি জানতে পারে যে আপনি অসদুপায় অবলম্বন করছেন তাহলে কিন্তু আপনার একাউন্টটি বন্ধ করে দিবে। ফলে আয়ের বদলে লোকসান হয়ে যাবে।


৩-কত টাকা আয় করতে পারবেন?

ধরে নিলাম আপনি যেকোনো ভাবে একাউন্ট করে নিলেন। এখন সার্ভে করে ইনকাম করবেন। কিন্তু ওরা আপনাকে আনলিমিটেড প্রশ্ন করবে না। বেশি প্রশ্ন পাওয়ার জন্য কিছু কিছু সাইট আছে যারা ইনভেষ্ট করতে বলে। সেখানে আবার খাজনার চেয়ে বাজনা বেশি।


এখন আপনি বেশি প্রশ্ন পাওয়ার জন্য ইনভেষ্ট করলেন। কিন্তু কয়েকদিন পড় দেখলেন সাইটটা অফ হয়ে গেছে। তাহলে ব্যপারটা “আম ও গেলও ছালা ও গেলো” হয়ে গেলো। ধরলাম আপনি ইনভেষ্ট না করে আয় করতে চাচ্ছেন। তাহলে দৈনিক সর্বোচ্চ কত আয় করতে পারবেন? হুম, উত্তর টা হবে দুই ডলার। বাংলায় ১৬০ টাকার মতো। সারাদিন আট থেকে নয় ঘণ্টা খেঁটে দুই ডলার আয় করা মানে বাবাকে বলতে পারবেন যে আপনি আয় করছেন।


৪-সার্ভে করে আয় করার কাজ কি আপনার জন্য?


এতক্ষণ যা বললাম আশাকরি, এতে আপনার উত্তর তৈরি হয়ে গেছে। কেননা, এটা অন্তত বুজতে পেরেছেন যে, সার্ভে করে যে টাকাটা আয় করা যায় তা উল্লেখ করার মত না।


৫-তাহলে আপনি কি করবেন?


ভাই, মিলিওনিয়ার মাইন্ডসেট করলেই মিলিওনিয়ার হওয়া যায় না। আপনার কাছে সবচেয়ে বড় যে সম্পদটা আছে তা হচ্ছে আপনার জ্ঞান আর আপনার হাতের মূল্যবান সময়। নিজের মূল্যবান সময়টাকে নষ্ট না করে দক্ষতা গড়ে তুলুন। কোন আপস আপনাকে ক্যারিয়ার গড়ে দিতে পারবে না। বরং আপস তৈরির জ্ঞান আপনাকে ক্যারিয়ার এনে দিতে পারে। বসে না থেকে পরিশ্রম করে কিছু করুন বা কোনও দক্ষতা বাড়ান। তাহলে নিজের ক্যরিয়ার গরতে পারবেন। অন্যের উপর নির্ভরশীল থেকে বাঁচতে হবে এমন কোন কিছুর আশায় বসে থাকবেন না। সময় গড়িয়ে যাচ্ছে।

আপনি যে সুযুগের আশায় বসে আছেন, তার চেয়ে ভাল সুযুগ হয়তো আপনার পাশ কাতিয়ে চলে যাচ্ছে। জীবনে তারাই সফল হয় যারা সঠিক সময়ে সঠিক পদক্ষেপ নইতে পারে। আর সঠিক সময় চিন্তে হলে জ্ঞান থাকা চাই। আপনি ওয়েব ডিজাইন শিখতে পারেন। ওয়েব ডেভেলপিং শিখতে পারেন।গ্রাফিক ডিজাইন শিখতে পারেন। এগুলা আপনার কেরিয়ার এনে দিতে পারে। কিন্তু সার্ভে কখনো আপনার কেরিয়ার এনে দিতে পারে না।
তাই অযথা নিজের মূল্যবান সময় গুলা কেনো নষ্ট করবেন?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *